ডাকপিয়ন

তুমি এসেছিলে বলে

তামান্না জাহান কেয়া:

আজ ২৫শে বৈশাখ কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মবার্ষিকী। বাংলা ভাষার শ্রেষ্ঠ কবি জন্ম আজ। বাংলা ভাষা, বাঙালী আর রবীন্দ্রনাথ’কে হয়তো আলাদা করার কোন উপায় নেই। একসাথে মিলেমিশে আছে যেন। তিনি শুধু বাংলা ভাষার শ্রেষ্ঠ কবি’ই নন তিনি ছিলেন বাংলা ছোট গল্পের প্রবক্তা। বাংলা ভাষায় ঔপন্যাসিক, নাট্যকার, প্রবন্ধিক, দার্শনিক, সঙ্গীতজ্ঞ, চিত্রকর ছিলেন রবিঠাকুর।

১৮৬১ সালে এই রকম এক বৈশাখে কলকাতার বিখ্যাত ঠাকুর পরিবারে কনিষ্ঠ পুত্র হয়ে জন্ম নিয়েছিলেন রবীন্দ্রনাথ। প্রথাগত শিক্ষাকে মামুলী করে শৈশব থেকেই কবিতা লেখা দিয়ে বাংলা সাহিত্যের জগতে তার প্রবেশের আরম্ভ। সুরালো গানের স্বর থাকার ফলস্বরুপ ছোটবেলা থেকেই বাবা মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুরের ব্রাহ্মসভায় গান গাইতেন তিনি। পরবর্তীতে তার নিজের লেখা গান সুর এবং ছন্দ তিনি নিজেই করেছেন। “ভরতী” পত্রিকায় নিয়মিত লেখক ছিলেন তিনি। তার কাব্যসাহিত্যের বৈশিষ্ট্য ভাবগভীরতা, গীতিধর্মিতা, চিত্ররুপময়তা, অধ্যাত্মচেতনা, প্রকৃতিপ্রেম, মানবপ্রেম, স্বদেশপ্রেম, বিশ্বপ্রেম, রোম্যান্টিক, বাস্তবচেতনা এবং প্রগতিচেতনা। তার কবিতায় ভাব, ভাষা, ছন্দ ও আঙ্গিকের বৈচিত্র্যের সম্বনয়। পারিবারিক জমিদারি দেখাশোনা কাজে বাংলাদেশের অনেক এলাকা তিনি ভ্রমণ করেন। বাংলা প্রকৃতি’তে তিনি মুগ্ধ হয়েছেন তার কথা বারবার উঠে এসেছে তার কবিতার মধ্য দিয়ে। কথাসাহিত্য ও প্রবন্ধের মাধ্যমে তিনি সমাজ, রাজনীতি, প্রচলিত প্রথা সম্পর্কে নিজ মতামত প্রকাশ করেছেন। এর পাশাপাশি তার রচনার মধ্য দিয়ে সামাজিক ভেদাভেদ, অস্পৃশ্যতা, ধর্মীয় গোঁড়ামি ও ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে তিনি তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন। তার রচিত বাংলা ছোট গল্পের মধ্যে দিয়ে যেমন সমাজের অসঙ্গতিকে তুলে এনেছেন তেমনই পাঠক কৌতূহলের তৈরি করেছেন। তার ছোট গল্পগুলো বার বার পাঠ করলেও মনে হবে আর একটু বেশী হলে মন্দ হতো না! বাংলা গানের অনেক নতুন সুরের স্রষ্টা তিনি। সমাজের অসঙ্গতি এবং চলমান রাজনীতি বিষয়গুলো উঠে এসেছিল তার উপন্যাস আর নাটকের কাহিনী, চরিত্রে। বাংলা উপন্যাস, প্রবন্ধ, কবিতা, ছোটগল্প, গান, ছন্দ, সুর, কবিতা অপার দুই হাতে তিনি বাংলা সাহিত্যেকে সমৃদ্ধ করে গিয়েছেন। বাংলা সাহিত্যকে এগিয়ে নিয়ে গিয়েছেন প্রায় একশত বছর। নিজের সৃষ্টির পুরস্কার হিসেবে পেয়েছেন সাহিত্যে নোবেল। জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে ব্রিটিশ নাইট উপাধি ত্যাগ করেন।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কেবল একজন সাহিত্যিক হিসেবে বাংলা ভাষা সাহিত্যিক পরিচিতই নন তিনি বাংলা সমাজ সংস্কারক হিসেবে গণ্য হয়েছেন। তিনি ব্রিটিশ বঙ্গভঙ্গ বিরোধী আন্দোলন জড়িয়ে পড়েন। শান্তিনিকেতনে এবং বিশ্বভারতী প্রতিষ্ঠা তার অসামান্য কাজের আবদান।

বাংলা সাহিত্যের অসামান্য এই মহিষীর আজ জন্মবার্ষিকী। বাঙালী হয়ে আমারা গর্বিত আমরা আমাদের সাহিত্যে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে পেয়েছি। আমরা প্রতিদিনের মনে ভাব প্রকাশের জন্য আমার তার কাছে সাহায্যপ্রার্থী। বাংলা সাহিত্যের প্রতিটি শাখায় তার রয়েছে আশ্চর্য পদচারণ। রবিঠাকুরের জন্মবার্ষিকীতে তার প্রতি এই আমাদের অজস্র অজস্র ভক্তি ভরে নিবেদন করছি।

আজি হতে শর্তবর্ষ পরে

কে তুমি পড়িছ বসি আমার কবিতাখানি

কৌতূহলভরে,

আজি হতে শর্তবর্ষ পরে!

আরও পড়ুন...

লেখক এবং চিকিৎসক নিসর্গ মেরাজ চৌধুরীর মুখোমুখি সাইফুল ইসলাম

ঝলক গোপ পুলক

জার্নালিজম ইজ নট এ ক্রাইম

ঝলক গোপ পুলক

সাইফুল ইসলামের নিমগ্ন পাঠে পিয়াস মজিদের কবিতাগ্রন্থ ‘গোলাপের নহবত ’

ঝলক গোপ পুলক